৫ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , মঙ্গলবার, ২১ ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২৩ শাবান, ১৪৪৫ হিজরি।
৫ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , মঙ্গলবার, ২১ ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২৩ শাবান, ১৪৪৫ হিজরি।

ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধন: বাংলাদেশ ধাপে ধাপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে

আশরাফুল ওয়াহিদ দুলাল:

(ছবি: বাহার উদ্দিন)

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শোষণমুক্ত, সমৃদ্ধ ও স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পর আধুনিক ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশ ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছে। হাতে লেখা পাসপোর্ট থেকে ডিজিটাল পাসপোর্ট সর্বশেষ এখন ই-পাসপোর্ট এর কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তির সাথে খাপ খাইয়ে নাগরিক সেবা প্রদানে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

বার্মিংহামস্থ সহকারী হাইকমিশনে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধনকালে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। গত ১৩ অক্টোবর ২০২৩, শুক্রবার বিকাল চারটার সময় সহকারী হাইকমিশন অফিসে এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারী হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারী (পাসপোর্ট ও ভিসা) মো. নাজমুস সাকিব, সভাপতিত্ব করেন বার্মিংহামস্থ সহকারী হাইকমিশনার মো. আলীমুজ্জামান। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা ও সেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মো. আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি। এ সময় অন্যান্যের মধ্য বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্ত বিষয়ক সস্পাদক মিসবাউর রহমান মিসবা, সদস্য ওয়াসিমুজ্জামান ওয়াসিম, কাউন্সিলর সাদেক মিয়া সমছুল, মায়া আলী, মিডল্যান্ডস আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম বেলাল, বার্মিংহাম আওয়ামিলীগের সহ সাধারণ সম্পাদক কামাল আহমেদ, নুরুল ইসলাম কিসলু, সাংবাদিক জয়নাল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাইকমিশনের এডমিন স্টাফ। সূচনা বক্তব্যে বাংলাদেশ থেকে আগত কর্মকর্তা মেজর কাজী আনিস মসুদ ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের পুরো প্রক্রিয়া স্লাইডের মাধ্যমে তুলে ধরেন। এসময় তিনি হাতে লেখা পাসপোর্ট থেকে ই-পাসপোর্ট পর্যন্ত সকল প্রক্রিয়া বিস্তারিত তুলে ধরেন।

উল্লেখ্য বর্তমান সময়ে বিশ্বে সহজভাবে ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে চলাচলের জন্য ই-পাসপোর্ট আবশ্যকীয়। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ই-পাসপোর্ট গ্রহীতাদের প্রদানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশই প্রথম এমনকি ভারতেরও পূর্বে বাংলাদেশে এই সেবা কার্যক্রম চালু হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। ইতোমধ্যে বাংলাদেশের আঞ্চলিক ও বিভাগীয় অফিস মিলিয়ে প্রায় ৭১টি পাসপোর্ট অফিস থেকে এ পাসপোর্ট ইস্যু করা হচ্ছে। বিদেশে ইতোমধ্যে ৩৪ টি মিশন থেকে এ সেবা প্রদান করা হচ্ছে। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের লন্ডনে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন সবার মাঝে

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on print
Print
Share on email
Email
Share on whatsapp
WhatsApp

কোন মন্তব্য নেই। আপনি প্রথম মন্তব্যটি করুন। on ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধন: বাংলাদেশ ধাপে ধাপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে

আপনি কি ভাবছেন ? আপনার মতামত লিখুুন।

এই বিভগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ